শুক্রবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ১০:৫৫ অপরাহ্ন

নোটিশ :
Welcome To Our Website...
আজকের সংবাদ শিরোনাম :
যে দোয়ায় দিনরাত সব সময় সওয়াব মিলে যুক্তরাজ্য জাসদের উদ্যোগে আলোচনা ও মতবিনিময় সভা বৃটেনে ইসলামী শিক্ষা বিস্তার ও মসজিদ মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠায় মাওলানা তহুর উদ্দীন গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস রচনা করে গেছেন বেগম খালেদা জিয়ার সুস্থতা ও দীর্ঘায়ু কামনায় যুক্তরাজ্যের বিএনপির খতমে কোরআন, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল বালাগঞ্জে কৃষি প্রণোদনা পেয়ে উপকৃত হচ্ছেন কৃষকরা কানাডায় বাংলাদেশি মালিকানাধীন সিকিউরিটি কোম্পানির যাত্রা শুরু ‘শুভ চঞ্চল সকাল’ ‘ঈর্ষান্বিত বিএনপি অপশক্তিকে নিয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে’ ‘একটাই দাবি- দেশনেত্রীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠাতে হবে’ বিশ্রামে কোহলি, নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথম টেস্টে ভারতের সম্ভাব্য একাদশ
প্রিন্স হ্যারি ও উইলিয়ামের বিরুদ্ধে অর্থ অপব্যবহারের অভিযোগ

প্রিন্স হ্যারি ও উইলিয়ামের বিরুদ্ধে অর্থ অপব্যবহারের অভিযোগ

দাতব্য অর্থের অপব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে দুই ব্রিটিশ রাজপুত্র প্রিন্স হ্যারি এবং প্রিন্স উইলিয়ামের বিরুদ্ধে। সম্প্রতি তাদের দাতব্য সংস্থাকে তদন্তের আওতায় নেয়া হয়েছে। প্রিন্স হ্যারির আইনজীবীরা অবশ্য বলছেন এ ধরনের অভিযোগ খুবই আক্রমণাত্মক। ওই অনুদানের টাকা এসেছিল উইলিয়াম ও কেটের রয়াল ফাউন্ডেশনের কাছ থেকে। প্রিন্স হ্যারি ও মেগান মারকেলকে সাসেক্স রয়াল চ্যারিটি গঠন করতে দেয়া হয়েছিল এ টাকা।
এছাড়া প্রিন্স হ্যারির ট্রাভেল সংস্থা ট্রাভেল লিস্টকেও অনুদান দেয়া হয়েছিল। এ কোম্পানিটি পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি এবং প্রিন্স হ্যারি এর ৭৫ শতাংশ অংশের মালিক। কিন্তু এ কোম্পানিকে অলাভজনক প্রতিষ্ঠান হিসেবে বর্ণনা করেন।
এদিকে ব্রিটিশ রাজপরিবারের বিপক্ষে অবস্থান নেয়া একটি সংগঠন রিপাবলিক দাবি করছে প্রিন্স হ্যারি ও উইলিয়ামের কারণেই সহজে অনুদান পাওয়া সম্ভব হয়েছে এবং অনুদানের অপব্যবহারও হয়েছে।
এ ধরনের অভিযোগ নাকচ করা হলেও রিপাবলিকের নির্বাহী প্রধান গ্রাহাম স্মিথ চ্যারিটি কমিশনের কাছে অভিযোগ জানিয়ে বলছেন, দাতব্য নয় এমন কোম্পানি ট্রাভেল লিস্ট এ ধরনের অনুদান পেয়েছে। একই সঙ্গে ব্যক্তিগত সিদ্ধান্তে এ ধরনের অনুদান ব্যবহার করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
স্মিথ উল্লেখ করেছেন, সম্ভবত আমি এখানে কিছু মিস করছি, তবে আমার বিশ্বাস করা কঠিন হয় যে একটি দাতব্য সংস্থা নিরপেক্ষ ও নিরপেক্ষ সিদ্ধান্ত গ্রহণের মাধ্যমে এই অর্থ প্রদানের সিদ্ধান্ত নেবে।
স্মিথ উল্লেখ করেছেন, রয়েল ফাউন্ডেশন প্রিন্স হ্যারির পোষা প্রকল্পগুলিতে প্রায় দুই লাখ নব্বই হাজার পাউন্ড (বাংলাদেশি টাকায় ৩০০ কোটি) ক্ষতি করেছে। হ্যারির নিজস্ব দাতব্য সংস্থা এখন বন্ধ হয়ে যাচ্ছে এবং মনে হয় যে তিনি দাতব্য অর্থের অর্থটি সঙ্গে নিয়ে যাচ্ছেন। আমি দেখতে পাচ্ছি। এটি দাতব্য আইনের লঙ্ঘন।
চ্যারিটি কমিশনের কাছে এখন প্রিন্স হ্যারি ও উইলিয়ামকে এ বিষয়টি নিয়ে জবাবদিহি করতে হবে। তাদের মুখপাত্র বলেছেন, এ ধরনের অনুদান ব্যবহারে বিধি ভঙ্গ যাতে না হয় সেজন্যে প্রিন্স হ্যারি ও উইলিয়াম প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।
উইলিয়াম এবং কেটসের রয়েল ফাউন্ডেশন হ্যারি এবং মেগান মার্কেল তাদের সাসেক্স রয়েল দাতব্য সংস্থাটি রাজকীয় জীবন ত্যাগ করার আগে সহায়তা করার জন্য এই অর্থের অনুদান দিয়েছিল। ফাউন্ডেশন হ্যারির টেকসই ভ্রমণ সংস্থা ট্রাভেল লিস্টকে অনুদানও দিয়েছিল।
গত দুই বছরে প্রতিষ্ঠিত বিভিন্ন দাতব্য প্রকল্পগুলির সাথে, প্রায়শই হাত বদল হয়েছে। এর ফলে বিপুল পরিমাণ অর্থের অপব্যবহারের অভিযোগে সমালোচকরা হ্যারি ও উইলিয়ামকে অভিযুক্ত করছেন ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আর্কাইভ

July 2020
M T W T F S S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930  

Weather

booked.net




© All Rights Reserved – 2019-2021
Design BY positiveit.us
usbdnews24