তুরস্কের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা করেছে আমেরিকা

সিরিয়ার কুর্দি গেরিলাদের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান চালানোর জন্য তুরস্কের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে আমেরিকা। এ নিষেধাজ্ঞার আওতায় আনা হয়েছে তুরস্কের দুটি মন্ত্রণালয় এবং তিনজন শীর্ষ পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তাকে।

সোমবার (১৪ অক্টোবর) মার্কিন অর্থ মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, তুরস্কের জাতীয় প্রতিরক্ষা এবং জ্বালানি ও প্রাকৃতিক সম্পদ মন্ত্রণালয়ের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে আমেরিকা। এর পাশাপাশি এই দুই মন্ত্রণালয়ের দুই প্রধান এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।

বিবৃতিতে সিরিয়ার সামরিক অভিযানের জন্য তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে প্রধান দায়ী করা হয়।

এর আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জানিয়েছিলেন, তার সরকার তুরস্কের বিরুদ্ধে বড় ধরনের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে যাচ্ছে যার আওতায় তুরস্কের কয়েকজন সরকারি কর্মকর্তা এবং প্রতিষ্ঠান থাকবে যারা সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলকে অস্থিতিশীল করার জন্য দায়ী।

তিনি ওই বিবৃতিতে জানিয়েছেন, শিগগিরই তিনি তুরস্কের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের নির্বাহী আদেশে সই করবেন। এর পাশাপাশি তিনি প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন যে, তুরস্কের ইস্পাত শিল্পের ওপর ৫০ ভাগ শূল্ক আরোপ করবেন এবং তুরস্কের সঙ্গে যে ১০ হাজার কোটি ডলারের বাণিজ্য চুক্তির ব্যাপারে আলোচনা চলছে তা দ্রুতই বন্ধ করার নির্দেশ দেবেন।

এদিকে, মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগানকে টেলিফোন করে দ্রুত যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়েছেন।

পেন্স বলেন, তিনি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তুরস্ক সফর করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *